জাতীয়

গহীন অরণ্যে ইসলাম প্রচারে ওমর ফারুক ত্রিপুরার এক অনন্য নিদর্শন

আফ্রিকার গহীন অরন্যে ইসলাম প্রচারে “হযরত সাদ বিন আবি ওয়াক্কাসের” মতোই ছিলেন আমাদের উমর ফারুক (রাহিঃ) এর নিজ হাতে নির্মিত এই মুসজিদ।

দূর্গমস্থান এবং খ্রিস্টান মিশনারীদের বিচরণ এমন স্থানে মসজিদ নির্মাণ……আমাদের অনেকেরই ইচ্ছে থাকে,কিন্তু সাধ্য থাকেনা…..
ঊমর ভাইকে দিয়ে আল্লাহ পাক তার “ইচ্ছে ও সাধ্যের” সমন্বয় ঘটিয়ে দিয়েছেন।
এই দুঃসাধ্যকে সাধ্য করেছেন,উমর ফারুক!
নিজেই শ্রম দিয়ে দাঁড় করিয়েছেন মসজিদ,নিজেই ছিলেন মুয়াজ্জিন ও ইমাম। (সুবহানাল্লাহ)

আল্লাহ সুবহানাহুওয়া তা’য়ালা উনার ভালো কাজগুলো কবুল করেন এবং ভুলত্রুটি গুলো ক্ষমা করে মাকামে জান্নাত দান করুন।

রাসূল (সাঃ) বলেনঃ
“যে ব্যক্তি আল্লাহর জন্য মসজিদ নির্মাণ করে, আল্লাহ তার জন্য জান্নাতে অনুরূপ গৃহনির্মাণ করেন।”
[সহীহ মুসলিম-১০৭৭]

অল্প দিনের মুসলিম!
অল্প দিনেই মসজিদের নির্মাতা।
অল্প দিনের মুয়াজ্জিন ও ইমাম।
অল্প দিনেই একজন দা’ঈ/ ইসলাম প্রচারক!
অল্প দিনে শাহদাতের সুধা পানকারী।
গহীন অরণ্যের এক দা’ঈ ইলাল্লাহ ,
দূর্গম পাহাড়ে ভোর বেলার পাখির গুঞ্জন যেন তোমার আজানের ধ্বনি। জান্নাতের সবুজ পাখি।

শহীদ ওমর ফারুক ( রহিঃ) আল্লাহ তাঁকে রহম করুন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button